আজ গ্রামীণফোনের হেডকোয়ার্টার জিপি হাউজে জিপি অ্যাক্সেলারেটর প্রোগ্রামের দ্বিতীয় ব্যাচের ডেমো ডে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল। জিপি অ্যাক্সেলারেটর প্রোগ্রামের সেরা পাঁচ স্টার্টআপ- বাজঅ্যালী, Nike Flyknit Donna সোশিয়ান, ক্র্যামস্টেক, ঘুড়ি এবং সিমেড তাদের বিজনেস আইডিয়াকে ১০০-ও বেশী সংখ্যক আমন্ত্রিত অতিথির সামনে তুলে ধরে। আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে ছিলেন দেশী-বিদেশী বিনিয়োগকারী, প্রোফেশনালস, গ্রামীনফোন এবং এসডি এশিয়ার সিনিয়র অফিসিয়ালস এবং আমন্ত্রিত সাংবাদিকরা। প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তথ্য প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। imgl9161 বাংলাদেশের আইটি স্টার্টআপদের সাহায্য করার জন্য গ্রামীনফোনের নেয়া পদক্ষেপগুলোর প্রশংসা করে পলক বলেন, Maglia James Harden ‘জিপি অ্যাক্সেলারেটরের গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করা স্টার্টআপগুলোর আইডিয়াগুলো অনেক বেশী আধুনিক এবং যুগোপযোগী। গ্রামীণফোনের মত কর্পোরেট কোম্পানি স্টার্টআপদের নিয়ে কাজ করার উদ্যোগকে আমি আসলেই স্বাগত জানাই’। সেরা পাঁচ স্টার্টআপকে অভিনন্দন জানিয়ে গ্রামীনফোন ও এসডি এশিয়ার সম্মিলিত উদ্যোগ ভবিষ্যতের স্টার্টআপগুলোকে আরও অনেক এগিয়ে নিয়ে যাবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন পলক। imgl9151 স্টার্টআপগুলোর এত কম সময়ে এত উন্নতি দেখে নিজের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছে গ্রামীণফোনের সিইও পিটার বি ফুরবার্গ। তিনি জানান,

  • New Balance 574 Uomo
  • ‘বাংলাদেশের ডিজিটাল স্পেসের প্রথম সারির প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্টার্টআপ ইকো-সিস্টেমকে এগিয়ে নিয়ে কাজ করে যাবে গ্রামীণফোন’। গ্রামীণফোনের হেড অফ ট্রান্সফর্মেশন কাজী মাহবুব হোসেন জানান, ‘ একটি স্টার্টআপকে গড়ে তুলতে হলে স্টার্টআপ বান্ধব পরিবেশ লাগে। আমাদের পার্টনার, Kanken Mini মেন্টর, Canotta Charlotte Hornets গ্রামীণফোনের সহকর্মী এবং পুরো স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমের সেই ধরণের সহযোগিতা করার জন্য কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি’। হেড অফ জিপি অ্যাক্সেলারেটর প্রোগ্রাম,মিনহাজ আনোয়ার জানান, Garrett Richards Jersey ‘ ২০২১ সালের মধ্যে ৫০টি স্কেলেবল গ্লোবাল বিজনেস তৈরি করার লক্ষ্য দার করিয়েছে জিপি অ্যাক্সেলারেটর, তাছাড়া বাংলাদেশের মধ্যেও নতুন উদাহরণ হিসেবে স্টার্টআপগুলোকে প্রতিষ্ঠিত করার পরিকল্পনাও করেছে প্রোগ্রামটি’। imgl9287 এসডি এশিয়ার প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও মুস্তাফিজুর রাহমান খান জানান, sac lancel pas cher ‘শূন্য থেকে শুরু করা স্টার্টআপগুলো এই অ্যাক্সেলারেটর প্রোগ্রামের বিভিন্ন বিষয় থেকে শিক্ষা নেয়ার মাধ্যমে বছর শেষে ১০০ মিলিয়ন ডলার সমমানের কোম্পানিতে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এটাই বাংলাদেশের কোটি মানুষের কাছে প্রেরণার উৎস হতে পারে’। নতুন সব টেক স্টার্টআপদের সুযোগ করে দিতে ২০১৫ সালের অক্টোবরে যাত্রা শুরু করেছিল ‘জিপি অ্যাকসেলারেটর’ প্রোগ্রাম। নির্বাচিত প্রকল্প গুলো প্রজেক্ট বাস্তবায়নের জন্য ১১ লক্ষ্য টাকা পাচ্ছে। এছাড়াও তারা গ্রামীনফোনের প্রধান কার্যালয় ‘জিপি হাউজে’ তাদের প্রকল্প নিয়ে কাজ করার জন্য অফিস স্পেস ব্যবহারের সুযোগ পাচ্ছে। এই প্রকল্পের প্রধান লক্ষ্য হবে সম্ভাবনাময় টেক স্টার্ট-আপ গুলো সঠিক মেন্টরশিপ এবং ফান্ডের মাধ্যমে এগিয়ে নেয়া।অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় সেরা ৫টি স্টার্ট আপ খুঁজে নেবার দায়িত্ব যৌথভাবে পালন করছে এসডি এশিয়া এবং গ্রামীণফোন। এবার ডেমো ডেতে দ্বিতীয় ব্যাচে থাকা সেরা পাঁচ স্টার্টগুলোকে দেখে নিন একনজর, Fjallraven Kanken Big   ক্র্যামস্টেকঃ একটি ডাটা অ্যানালিটিক্স প্লাটফর্ম যা অ্যানালিটিকস পাইপলাইন এবং মডেলের মাধ্যমে বড় প্রতিষ্ঠানের অনেক জটিল ডাটার উপাত্ত বের করে আনবে।বিজনেস ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করে সার্চ ড্রাইভেন ডেটা অ্যানালিটিকাল প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করছে ক্র্যামস্টেক।আর তাই যারা টেক সম্পর্কে অনেক কম জানেন তারাও ক্র্যামস্টেক ব্যবহার করে ডেটা বিশ্লেষণ করতে পারবেন।   ডেটা সম্পর্কে টেকনিক্যাল অভিজ্ঞতা ছাড়াই যে কাউকে বিজনেস ডেটা বিশ্লেষণের কাজ সহজ করে দেয়াটাই ক্র্যামস্টেকের মূল লক্ষ্য। কয়েক ঘণ্টার ডেটা বিশ্লেষণ প্রক্রিয়াকে মাত্র কয়েক সেকেন্ডেই সমাধান করে দিচ্ছে ক্র্যামস্টেক। সোশিয়ানঃ সোশ্যাল মিডিয়া অ্যানালিটিক্স। এই অ্যানালিটিকস প্লাটফর্ম একটি ব্র্যান্ডকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কি কি আলোচনা হবে তা তুলে আনবে। নিজেদের প্লাটফর্মে ‘বাংলা ভাষার ডাটা অ্যানালাইসিস’ সংযোজন করে অন্য স্টার্টআপের চেয়ে নিজেদের আলাদা করেছে সোশিয়ান। সোশিয়ান প্লাটফর্মটি একাশিটি ভাষার সাপোর্ট দিতে সক্ষম, যা দিয়ে অন্য কোম্পানিগুলো শুধু ইংরেজি ভাষাই সাপোর্ট দিয়ে আসছে। যদিও তারা বর্তমানে শুধু বাংলা এবং আরও কিছু দক্ষিণ এশিয়ার ভাষা নিয়ে কাজ করতে বেশি আগ্রহী। সি-মেডঃ খুব কম খরচে ক্লাউড বেসড মেডিক্যাল সার্ভিস প্রদান করে সি-মেড।বাংলাদেশের মানুষের জন্য সহজেই ব্যবহার করা যায় এমন মাধ্যম যা কম খরচে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে পারে।নন- কমিউনেকেবল রোগগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে কাজ করে যাচ্ছে এই স্টার্টআপটি। বাজঅ্যালীঃ ব্র্যান্ডের জন্য মোবাইল মার্কেটিং সেবা দিয়ে আসছে তারা। মিসড কল মার্কেটিং বাজঅ্যালীর প্রথম প্রোডাক্ট।বিভিন্ন অ্যানালেটিক্সের মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যবসার টার্গেট কাস্টমারকে খুঁজে বের করবে বাজঅ্যালীর সিস্টেম। সামনের ছয় মাসের মধ্যে বেশ বড় লক্ষ্য পূরণ করতে কাজ করে যাচ্ছে স্টার্টআপটি। এই সময়ের মধ্যে নিজেদের বেটা ভার্শন ঠিক করা এবং অন্তত ১০টি ক্যাম্পেইন পরিচালনা করার লক্ষ্য ঠিক করেছে তারা। ঘুড়িঃ হোটেল এবং ট্যুর প্যাকেজ থেকে শুরু করে ওয়ান স্টপ ট্রাভেল সলিউশন দিয়ে আসছে ঘুড়ি। নিজেদের সাইটেই চ্যাট-বটের মাধ্যমেই কাস্টমারদের সেরা প্যাকেজটি নেয়ার সাজেশন দিচ্ছে স্টার্টআপটি।সেলস বাড়াতে এখন মার্কেটিং এবং ক্লায়েন্ট সার্ভিস আরও উন্নত করার চেষ্টা করে যাচ্ছে ঘুড়ি।বিভিন্ন ট্রাভেল এজেন্ট,