প্রথমবার সফল আয়োজনের পর এবছর আবারও শুরু হচ্ছে এসডি এশিয়া আয়োজিত ‘গ্রামীণফোন ইনোভেশন এক্সট্রিম’।বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় স্টার্ট আপ ইভেন্ট ‘ইনোভেশন এক্সট্রিম’ আয়োজন করার উদ্যোগ নিয়েছে স্টার্ট আপ, বিজনেস এবং ইনভেস্টরদের জন্য কন্টেন্ট এবং ইভেন্ট প্লাটফর্ম এসডি এশিয়া এবং ইভেন্টটি স্পন্সর করছে গ্রামীণফোন।

‘ইনোভেশন এক্সট্রিম’ ইভেন্টটি অনুষ্ঠিত হবে র‍্যাডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেনে ডিসেম্বর ৫, ২০১৫ তারিখে।বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোনের স্পন্সর করা এই ইভেন্টটির মিডিয়া পার্টনার হিসেবে থাকবে  ফেসবুক এবং টেক ইন এশিয়া।

বাংলাদেশের উদ্যোক্তা সমাজকে বিনিয়োগকারী, দেশি-বিদেশি মিডিয়া, কর্পোরেট প্রফেশনালদের সামনে তুলে ধরবে এই ইভেন্ট। বাংলাদেশ: দ্যা নেক্সট টেক ফ্রন্টিয়ার থিম নিয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এবছরের ইভেন্ট।

এই ইভেন্টের মাঝেই ‘ইনোভেশন ইন বাংলাদেশ’ নামে থিম নাম নিয়ে নতুন স্টার্ট আপগুলো তাদের প্রোজেক্ট শোকেস করার সুযোগ পাবে। ইভেন্টে আরও থাকবে সফলতার গল্পও। এবছরের ইভেন্টে সবচেয়ে বেশী গুরুত্ব দেয়া হবে টেক এবং আইটি স্টার্টআপ গুলোকে। সেরা পাঁচ স্টার্ট আপ পুরস্কার হিসেবে উপভোগ করতে পারবে ফেসবুকের প্রায় ৫০ হাজার মার্কিন ডলার সমমানের স্টার্ট আপ প্যাকেজ।

ছাত্র, উদ্যোক্তা, ডেভলাপার, কর্পোরেট ব্যক্তিত্ব, বিনিয়োগকারী, এনজিও, আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং দেশ বিদেশের মিডিয়া ছাড়াও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে এবারের ইভেন্টে।

গ্রামীণফোনের মার্কেটিং ডিরেক্টর নেহাল আহমেদ ইভেন্টটি সম্পর্কে বলেন, ‘‘ইন্টারনেট ফর অল’’ প্রত্যয় নিয়ে সবার কাছে ইন্টারনেট পৌঁছে দেরার জন্য কাজ করে যাচ্ছে গ্রামীনফোন। আমরা সাড়া বাংলাদেশে ইন্টারনেট ডাটা সেবা আরও বাড়িয়ে দেয়ার প্রয়োজন অনুভব করছি।তাই আমরা সচেতনতা, কমদামী ডিভাইস এবং আকর্ষণীয় কন্টেন্ট এই তিন বিষয়কে মাথায় রেখে পরিকল্পনা করছি।আর তাই ‘ইনোভেশন এক্সট্রিমের সাথে যুক্ত হয়ে আমরা ভবিষ্যতে ডিজিটাল কানিকটিভিটি আরও বাড়িয়ে দিতে চাই’।

আগামী ২৫ বছরের মধ্যে বাংলাদেশের মানুষ নিজেই নিজের প্রতিষ্ঠান চালানো শুরু করবে এবং গ্লোবাল বিজনেস কমিউনিটিতে সম্মানজনক স্থান অর্জন করে নিবে। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অফ সফটওয়ার এবং ইনফরমেশন সার্ভিসের(বেসিস) তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশে ২০১৪ সালে ৪০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমানের আইটিইএস এক্সপোর্ট করেছে, যা আগামী তিন বছরের মধ্যে ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে যাবে। বাংলাদেশ এখনই শেপিং পলিসি শুরু করতে পারে যা সাড়া পৃথিবীতে বাংলাদেশকে পরিচিতি করতে পারে।এবারের ‘ইনোভেশন এক্সট্রিম’ ইভেন্টে বাংলাদেশের টেকনোলজি এবং ইকোনমিক দিক থেকে সম্ভাবনা তুলে ধরা হবে।

এসডি এশিয়ার প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী মোস্তাফিজুর রাহমান জানান, “এক দিনের ‘ইনোভেশন এক্সট্রিম’ ইভেন্টে বাংলাদেশের সবচেয়ে সম্ভাবনাময় স্টার্টআপগুলো তাদের প্রজেক্ট তুলে ধরার সুযোগ পাবে।একই ছাদের নিচে এই ইভেন্টে উদ্যোক্তা, বিনিয়োগকারীদের নিয়ে আসবে”।

এসডি এশিয়ার সহ প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান ফিনান্সিয়াল অফিসার ফায়াজ তাহের বলেন, “নিঃসন্দেহে এবারের ‘ইনোভেশন এক্সট্রিম’ গতবারের চেয়েও বড় পরিসরে হতে যাচ্ছে যা নেটওয়ার্কিংয়ের জন্য সবচেয়ে কার্যকর। সেরা ২০টি স্টার্ট আপ তাদের প্রোজেক্ট দেশীয় বিনিয়োগকারীদের সামনে তুলে ধরতে পারবে।আমি নিজেও এই ইভন্টে সব স্টার্ট আপ, বিনিয়োগকারী দের সাথে দেখা করার জন্য মুখিয়ে আছি”।

ইনোভেশন এক্সট্রিম সম্পর্কে এসডি এশিয়ার সহ প্রতিষ্ঠাতা সামাদ মিরালি বলেন, “টেক নিয়ে সবারই আগ্রহ থাকে সবচেয়ে বেশী। ‘ইনোভেশন এক্সট্রিম’ বাংলাদেশের টেক ব্যবসা নিয়ে ধারণা পাওয়ার সবচেয়ে উপযুক্ত ইভেন্ট। ছোট ছোট উদ্যোক্তারা এই ইভেন্টেই বড় বড় বিনিয়োগকারীদের সাথে পরিচিত হতে পাড়বে। গতবারের চেয়েও বড় পরিসরে হতে যাওয়া এবারের ‘ইনোভেশন এক্সট্রিম’ ইভন্টে বিদেশী উদ্যোক্তা, বিনিয়োগকারীদের নজর কারার সুযোগ থাকছে”।

ইনোভেশন এক্সট্রিমে কারা বক্তব্য রাখবেন?

 

ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, ফেসবুক, মাইক্রোসফট, বোস্টন কন্সাল্টিং গ্রুপ, সিগনাল ভেঞ্চার্স, মাস্টার্কার্ড, আইএমজে ইনভেস্টমেন্ট পার্টনার্স, ম্যাজিক অ্যাকসেলারেটর, সহজ ডট কম, গো বিডি , বিডি জবস, চালডাল ডটকম, এইটরোডস ভেঞ্চার এবং এসডি এশিয়া সহ অনেক প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে।

‘ইনোভেশন এক্সট্রিমের’ লিড পার্টনার গ্রামীণফোন, গোল্ড পার্টনার মাইক্রোসফট এবং ইভেন্ট পার্টনার হিসেবে থাকছে ফেসবুক এবং টেক ইন এশিয়া।

 

রেজিস্ট্রেশন করতে ভিজিট করুন : www.innovationxtreme.co

যোগাযোগ: ফায়াজ মাহদি,ফোন: +8801674284519

ইমেইল: faez.sdasia@gmail.com

 

ইভেন্টের বেশ কিছু ছবি দেখে নিতে পারেন,