এর আগে বিনামূল্যে ল্যাপটপ পেয়েছিল অনেক শিক্ষার্থীরা।‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ স্বপ্ন পূরণ করতে প্রত্যেক স্কুলে স্কুলে কম্পিউটার এবং ডিজিটাল পদ্ধতিতে পড়ালেখা চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছিল আগেই। এক্সিম ব্যাংকের সহায়তায় ‘ওয়ান স্টুডেন্ট ওয়ান ল্যাপটপ’ নামে বিশেষ একটি প্রকল্প নিয়েছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ।

শুরুতেই দেশের প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়ে দেয়া হবে এসব ল্যাপটপ।প্রাথমিক ভাবে ৫০০ ল্যাপটপ বিতরণ করা হয়েছে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে আরও দুই হাজার ল্যাপটপ দেয়া হবে।

রোববার বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল(বিসিসি) ভবনে তিন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ৫০০ ল্যাপটপ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে নতুন করে আরও দুই হাজার ল্যাপটপ প্রদানের এ ঘোষণা দেয়া হয়।এক্সিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান মোঃ.নজরুল ইসলাম মজুমদার ৫০০ ল্যাপটপের সাথে নতুন করে শিক্ষার্থীদের আরও দুই হাজার ল্যাপটপ দেয়ার ঘোষণা দেন।

 

শিক্ষার্থীদের এই ল্যাপটপ প্রদান প্রকল্পে প্রথমে লোণের মাধ্যমে কিস্তি পরিশোধের শর্তে ল্যাপটপ দেয়ার কথা থাকলেও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বিনামূল্যে এই ল্যাপটপ প্রদানের উদ্যোগ নেন।

 

শিক্ষার্থীর মেধা ও অর্থনৈতিক অবস্থা বিবেচনা করে এই প্রকল্পের অধীনে ল্যাপটপ দেয়া হবে।অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ‘ওয়ান স্টুডেন্ট ওয়ান ল্যাপটপ’ প্রকল্পের আওতায় ২৫০টি ল্যাপটপ সাথে বিনামূল্যে টেলিটকের থ্রিজি মডেম এবং  পেন ড্রাইভ দেয়া হয়েছে।

বুয়েট এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০০ করে মোট ৪০০ শিক্ষার্থীকে এই ল্যাপটপ দেয়া হয়েছে। আর বাকি ১০০টি ল্যাপটপ পাবে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এরপরই প্রকল্পটির পরিসর আরও বিস্তৃত করে দেশের সব কয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের মধ্যে ল্যাপটপ বিতরণ করার কথা রয়েছে।

 

প্রকল্পের অধীনে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ অনলাইনে আবেদন করতে ইতিমধ্যে ওয়ান ল্যাপটপবিডি নামে একটি ওয়েব সাইট খোলা হয়েছে।

 

এর আগে স্কুলের শিশুদের জন্য প্রোগ্রামিং শেখার জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া হয়। সেই লক্ষ্যে প্রত্যন্ত স্কুল পর্যায়ে পড়ালেখার জন্য ডিজিটাল উপকরণের ব্যবস্থা নেয়া চলছে।এখন নেয়া হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়য় পর্যায়ের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য উদ্যোগ।

 

ল্যাপটপ হস্তান্তরের এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ.আ.ম.স আরেফিন সিদ্দিক, বুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক খালেদা একরাম, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ. ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস।

Tousif Alam