নাহ! সামনের সেমিস্টারে ভালভাবে পড়ে পরীক্ষা দেব। বাংলাদেশের ৯০% ছাত্রদের মুখে এই কথাটা একেবারে পরিচিত।কিন্তু সেমিস্টার শেষে দেখা যায় সেই একই ঘটনা।

অনেক বেশী পড়ালেখা করলেই যে খুব বেশী ভাল রেজাল্ট হয়ে যাবে সেটাও কিন্তু ঠিক নয়। বরং নিয়ম মেনে রুটিন করে পড়ালেখা করে সাফল্য পাওয়ার সম্ভাবনা বেশী।

তাই যেসব ছাত্র ছাত্রীরা সেমিস্টারের শেষে পরীক্ষার আগে আগে চিন্তায় পড়ে যান তারা দেখে নিতে এসডি এশিয়ার দেয়া কিছু টিপস

 

ক্লাসে নোট লিখে নিতে হবে

 

ক্লাসের সময়টা একটু মন দিয়ে টিচারের লেকচার শুনতে হবে। প্রয়োজন বুঝে নোট লিখে নিতে হবে। এতে করে পরীক্ষা বা কুইজের আগের রাতে শুধু নোট দেখে নিলেও পুরো লেকচার সম্পর্কে অনেক ধারণা মিলবে। গুরুত্বপূর্ণ লেকচারগুলো অন্য রঙের কলম বা গাড় কালিতে লিখে নিতে হবে যেন সহজেই চোখে পড়ে।

 

অবশ্যই পড়তে হবে

 

পড়ালেখার অন্য কোন বিকল্প নেই। সেমিস্টারে ভাল রেজাল্ট করতে হলে অবশ্যই ভাল ভাবে পড়তে হবে। ইন্টারনেট,গেমস কিংবা বন্ধুদের সাথে একটু কম ঘুরে নিজের পড়া শেষ করে রাখতে হবে। কারণ কথায় আছে, ‘কষ্ট না করলে কেষ্ট মেলে না’।

 

রুটিন মেনে চলতে হবে

পড়ালেখা, ঘুমানো, বেড়াতে যাওয়া, টিভি দেখা কিংবা খেলাধুলা যাই হোক না কেন সবকিছুই একটা মাত্রায় নিয়ে আসতে হবে। মনে রাখতে হবে অতিরিক্ত কোন কিছুই কিন্তু ভাল না। এজন্য সব কাজের একটা রুটিন করতে হবে। রুটিন মেনে চললে অনেক কঠিন কাজও সহজে শেষ হয়ে যায়।

 

পর্যাপ্ত ঘুম

 

মুভি দেখা, ইন্টারনেট ব্রাউজিং কিংবা গেমস খেলতে বসে গেলে ছাত্র-ছাত্রীদের যেন আর হুঁশ থাকে না।আবার সকালে ক্লাস থাকায় ঠিক মত ঘুমাতেও পারেন না অনেকে।এমন বেহুঁশ হয়ে চললে পড়ালেখার অবস্থা ১২ টা বেজে যাবে।তাই রাতের বেলা অবশ্যই পর্যাপ্ত ঘুমাতে হবে। ঘুম ভাল হলে শরীর এমনেতেই ভাল থাকে। তাই পড়ালেখা করতেও মন বসবে। বিশেষ করে পরীক্ষার আগের রাতে ভাল একটা ঘুম হলে পরীক্ষাটাও ভাল হয়ে যায়।

Tousif Alam