২০০৫ সালে বিদেশে উচ্চশিক্ষার পাট চুকিয়ে বাংলাদেশে ফিরে আসেন মিশেল করিম।সেসময় ২৪ বছর বয়স থেকেই উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ শুরু করেন মিশেল। জেপিআর ইভেন্ট পোর্টালের মাধ্যমে তার উদ্যোক্তা জীবনের পথচলা।স্যামুয়েল ব্রেটজফিল্ডের সাথে যুক্ত হয়ে তিনি   ওয়েব সলিউশন কোম্পানি তৈরি করেছেন। তাদের বেশিরভাগ ক্লায়েন্ট ছিল আমেরিকা এবং ইংল্যান্ডের। বেশ কয়েক বছর ধরে এমন উন্নত টেক ফার্ম চালানোর পর তারা অন্য কিছু করার পরিকল্পনা করছিল। সেই প্রেক্ষিতেই এডওয়ার্ড বেরনটের সাথে যুক্ত হয়ে নতুন এক ব্যবসা শুরু করেন তারা।

 

বাংলাদেশের প্রথম দিককার অনলাইন গ্রোসারি শপ হিসেবে যাত্রা শুরু করে ডাইরেক্ট ফ্রেশ। শুধু গ্রোসারি শপ হিসেবেই নয়, ডাইরেক্ট ফ্রেশ শাক সবজি উৎপাদন, পরিবহন এবং ক্রেতাদের দরজায় পৌঁছে দেয়ার মত কাজ করে থাকে। ঘর ছাড়াও বিভিন্ন হাসপাতাল, হোটেল, রেস্টুরেন্ট, ক্লাব এবং সুপার স্টোরও খাবার সরবরাহ করে তারা। ঢাকার গাবতলিতে ছয় হাজার স্কয়ার ফিটের বিশাল যায়গায় খাবার স্টোর করে রাখে তারা। সেখানে ৬০ টন খাবার মজুদ করে রাখা যায়। ডাইরেক্ট ফ্রেশ কিভাবে এত সুন্দর করে নিজেদের কাজ পরিচালনা করে যায় মিশেল করিম এবং স্যামুয়েলের সাথে আলাপচারিতায় জেনে নেয়া যাক,

 

 

ডাইরেক্ট ফ্রেশের প্রোডাকশন এবং সার্ভিস সম্পর্কে তারা জানান,

 

সরাসরি ইংল্যান্ড থেকে আমদানি করা শুকনো খাবার, মাখন ও পনিরের মত প্রিমিয়াম পণ্য, থাইল্যান্ড,ফ্রান্স থেকে আমদানি করা শাকসবজি, ফ্রান্স থেকে মাংস এবং ফরমালিন এবং ক্যামিকেল মুক্ত স্থানিয় ফল এবং শাক সবজি এই চার ধরণের পণ্য বিক্রি করে থাকে ডাইরেক্ট ফ্রেশ। শুরুতে আমরা শুধু প্রিমিয়াম পণ্য বিক্রি করতাম। এরপর সব শ্রেণীর মানুষের কাছে পৌঁছাতে সব ধরনের পণ্য সবার ঘরের দরজায় পৌঁছে দেয়ার কাজ শুরু করি। আমরা হাসপাতাল এবং ক্লাবেও খাবার সরবরাহ করি।

 

অন্য ব্যবসা ছেড়ে এই ব্যবসা শুরু করার কারণ,

directfreshbd

এই ব্যবসায় আসার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ হল, সবাই অন্তত ফ্রেশ খাবার খেতে চায়।কিন্তু বিশুদ্ধ খাবার খুঁজে বের করাও অনেক কঠিন একটা কাজ। তাছাড়া সুপার মার্কেটের পণ্যও যে বিশুদ্ধ হবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই। এসব থেকে পরিত্রাণ দেবে ডাইরেক্ট ফ্রেশ। কারণ আমাদের সব খাবারই নিজেদের তৈরি করা বা নিজস্ব কৃষকদের দ্বারা উৎপন্ন। তাই এসব পণ্যে বিষাক্ত কিছু থাকার সম্ভাবনা নেই। আমাদের মূলনীতি একটাই, কোন বিষাক্ত কেমিক্যাল যুক্ত খাবার আমরা বিক্রি করব না।

 

ডাইরেক্ট ফ্রেশের বিজনেস মডেল,

 

পাঁচটি মডেলকে এক করে আমরা আমাদের বিজনেস মডেল তৈরি করি। আমরা আইটি ব্যবসা থেকে অনেক ধরণের শিক্ষা নিয়ে এই ব্যবসায় কাজে লাগাতে পারছি। আমরা শুরুতে প্রিমিয়াম পণ্য বিক্রি করতাম। এখন আমরা আমাদের পণ্য বিক্রির সংখ্যা ৩০০ থেকে বেড়ে ৪০০০-এ নিয়ে এসেছি। এতে করে আমাদের ক্রেতা সংখ্যাও অনেক বেড়ে গেছে।

 

ব্যবসা চালাতে যেয়ে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা,

 

আমরা সবাই জানি বাংলাদেশের রাজনৈতিক অবস্থা খুব বেশি ভাল নেই। তাই পরিবহন সমস্যায় প্রায় সময়ই ভুগতে হয়েছে আমাদের। আর একটা সমস্যা হল, এখনও বাংলাদেশের অনেক মানুষেরই ই-কমার্স সম্পর্কে খুব একটা ধারণা নেই। তাই ঘরের গৃহিণী এবং মা’রা বাজার থেকেই পণ্য কিনতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। তাই আমরা এখন আমাদের ক্রেতা হিসেবে তরুণদের আকৃষ্ট করতে চাচ্ছি। বাংলাদেশে এখনও অনেকে বাজার থেকে পছন্দ করে পণ্য কেনার নীতিতে বিশ্বাসী। তাই শুরুতেই তাদের মত গ্রাহকদের সন্তুষ্ট করতে কষ্ট করতে হয়েছে। টাকা পয়সা লন দেনের ক্ষেত্রেও সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছে আমাদের।

 

আগামী এক বছরে ডাইরেক্ট ফ্রেশ নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা,

 

আমরা এরই মধ্যে বিশুদ্ধ দুধ সরবরাহ করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। বাংলাদেশের অনেক খামারিরাই গরুকে পুষ্টিকর খাবার খেতে দেয় না।এতে করে গরুও পুষ্টিকর দুধ দেয় না। অনেক সময়ই দুধের মধ্যে পানি মেশায় তারা। তাই আমরা নিজেরাই পুষ্টিকর গরুর দুধ সরবরাহ করার পরিকল্পনা করেছি।

 

এছাড়া আমরা পানিতে শাক সবজি চাষ করার পদ্ধতি নিয়েও গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছি। এই পদ্ধতিতে আরও পুষ্টিকর খাবার উৎপন্ন করা যাবে।

 

ব্যবসায়ী এবং উদ্যোক্তাদের জন্য পরামর্শ,

 

পরিষ্কার পরিকল্পনা এবং কোঠর পরিশ্রমের মাধ্যমে কাজে সফলতা আসবেই। প্রথমবারেই সফল না হলেও দুই তিনবার চেষ্টা করে সফল হওয়া সম্ভব। ডাইরেক্ট ফ্রেশ এবং ক্যাটালিস্টের সাথে মিলে একটি নতুন চুক্তিও সাক্ষর করা হয়েছে। এতে করে বিশুদ্ধ টাটকা শাকসবজি বিক্রি করার একটি উপায় হবে। বিশুদ্ধ বীজ, কেমিক্যাল মুক্ত চাষের মাধ্যমে সেরা পণ্যটিই তৈরি করেছি।গুড এগ্রিকালচারাল প্র্যাকটিস(জিএপি) নামে নতুন একটি প্রোজেক্টও হাতে নিয়েছি আমরা। এই প্রজেক্টের আওতায় মানিকগঞ্জের দুটি গ্রামে কৃষকদের টেকনোলজিকাল সাহায্য করে পণ্য উৎপাদন করার ট্রেনিং দেয়া হবে।এতে করে আমাদের পণ্য উৎপাদন সম্পর্কেও গ্রাহকদের মধ্যে ভাল ধারণার সৃষ্টি হবে।

 

এমন বিশুদ্ধ খাবার অর্ডার করতে ভিজিট করুন এই সাইটে, https://www.directfreshbd.com/

Tousif Alam